স্টার ফ্লাওয়ার এস.আর স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ - আজকের সংবাদ

সদ্য পাওয়া

Home Top Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭

Post Top Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭

রবিবার, ২৬ মে, ২০১৯

স্টার ফ্লাওয়ার এস.আর স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ


স্টার ফ্লাওয়ার এস.আর স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ





আজকের সংবাদ ডট কমঃ সোনারগাঁয়ের মেঘনা এলাকায় স্টার ফ্লাওয়ার এস.আর স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।
শিক্ষার্থীরা এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলেও কোন প্রতিকার পায়নি। এ বিষয়ে উচ্চ আদালত ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সুষ্পষ্ট নির্দেশনা থাকলেও তা এ স্কুলের কাছে উপেক্ষিত। বর্তমানে শিক্ষা মন্ত্রনালয় কোচিং বানিজ্য বন্ধ করার পরও এ স্কুলে চলছে কোচিং বানিজ্যের নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ।
স্টার ফ্লাওয়ার এস.আর স্কুল থেকে এবার এসএসসি পরিক্ষায় পাশ করা শিক্ষার্থীদের বাধ্যতামূলক এ স্কুলেই ভর্তি হবার নির্দেশ দেয় এ স্কুলের অধ্যক্ষ। যদি কোন শিক্ষার্থী তার কলেজে ভর্তি না হয়,তাহলে তাকে সার্টিফিকেট ও মার্কসিট দেয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেয় অধ্যক্ষ শাহ আলী।





জানা গেছে, সোনারগাঁয়ের মেঘনা এলাকায় স্টার ফ্লাওয়ার এস.আর স্কুল কর্তৃপক্ষ উচ্চ আদালত ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে শিক্ষার্থী থেকে জনপ্রতি ১৭ হাজার টাকা থেকে ২০ হাজার টাকা আদায় করেছে।





এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ থাকার মধ্যে এই স্কুলটি নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছে প্রশংসা পত্র বিক্রি করে। প্রতিটি শিক্ষার্থী থেকে ১ হাজার টাকায় প্রশংসাপত্র বিক্রি করছে। যা প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা এ স্কুলের ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগগুলো তদন্ত করে স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানায়।





স্টার ফ্লাওয়ার এস.আর স্কুলের অধ্যক্ষ শাহ আলী জানায়, আমারা খুবই উন্নত মানের কাগজ দিয়ে প্রশংসাপত্র তৈরি করায় ১ হাজার টাকা নিতে হচ্ছে। আপনি দেখেন সরকারি স্কুলে একেবারে নর্মাল কাগজ দিয়ে প্রশংসাপত্র তৈরি করে ৫ শত টাকা নেয়। আর ১৮ হাজার টাকা শুধু ফরম পূরনে নেইনি। এখানে শিক্ষার্থীদের কোচিং সহ অন্যন্য টাকা অন্তভূক্ত রয়েছে।





সোনারগাঁও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম জানায়, আমি ট্রেনিংয়ে আছি। এ বিষয়ে পরে কথা বলবো।





উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন,এমন অভিযোগ আজকেই পেয়েছি,যদি অভিযোগের সত্যতা প্রমাণ হয় তাহলে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে তদন্ত করে আইননানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭