সোনারগাঁয়ে ভূমি খেকো আশ্রাফউদ্দিন,সাহাবুদ্দিনের কাছ থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা খাল ও কৃষি জমি - আজকের সংবাদ

সদ্য পাওয়া

Home Top Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭

Post Top Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭

শনিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২০

সোনারগাঁয়ে ভূমি খেকো আশ্রাফউদ্দিন,সাহাবুদ্দিনের কাছ থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা খাল ও কৃষি জমি


সোনারগাঁয়ে ভূমি খেকো আশ্রাফউদ্দিন,সাহাবুদ্দিনের কাছ থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা খাল,কৃষি জমি





নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধিঃ- নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার কাবিলগঞ্জ এলাকার চিহ্নিত ভূমিদস্যু আশ্রাফ উদ্দিন ও সাহাবুদ্দিনের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে বিন্নিপাড়া সহ আশপাশের এলাকাবাসী।





নিরীহ মানুষের জমি ও সরকারী খাল দখল করে রাতের আধারে বালু ভরাট করে ফেলছে ভূমি খেকো আশ্রাফ উদ্দিন ও সাহাবুদ্দিন নামে দুই সহোদর।
এমনকি সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী অফিসার কেও বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে জমি দখল ও বালু ভরাট অব্যাহত রেখেছে।





একটি সুত্র হতে জানা যায়,সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী অফিসার দুইবার মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে লক্ষাধিক টাকা জরিমানা করলেও থামেনি ভূমিখেকো আশ্রাফ উদ্দিন ও সাহাবুদ্দিন।









মোগড়াপাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভূমি সহকারী কর্মকর্তা জালালউদ্দিন আহম্মেদ গত ২৮ অক্টোবর সহকারী কমিশনার ভূমি সোনারগাঁ কে সরকারী খাল ও জমি উদ্ধারের জন্য একটি লিখিত পত্র দেন।
তাতে তিনি উল্লেখ করেন কাবিলগঞ্জ এলাকার হাজ্বী মোঃ সামসুদ্দিনের পুত্র আশ্রাফ উদ্দিন ও সাহাবুদ্দিন জোর পূর্বক রাতের অন্ধকারে ড্রেজারের মাধ্যমে বালু দিয়ে সরকারের  ১নং খাস খতিয়ান ভূক্ত প্রবাহমান খাল ও কৃষি জমি ভরাট করে ফেলে।





এর মধ্যে মেনিখাল মৌজার খতিয়ান নং-১ দাগ নং ১৮৪,জমির আকার খাল, জমির পরিমান ৩৫ শতাংশ, দাগ নং ১৯৭ জমির পরিমান ৭৬ শতাংশ সহ প্রায় ১শ বিঘা,তার ভাই সাহাবুদ্দিন কাবিলগঞ্জ মৌজার ১নং খতিয়ান,দাগ নং ২৬ জমির পরিমান ২৭ শতাংশ,দাগ নং২৭ জমির পরিমান ১৮ শতাংশ বালু দিয়ে ভরাট করে ফেলে।অবৈধ ভাবে জমি ভরাটের পরিমান ৬০ বিঘা।
উক্ত ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে কৃষক ও জমির মালিক গন মানববন্ধনসহ সরকারের বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হলেও কোন কাজ হয়নি।





এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, ভূমিদস্যু আশ্রাফ উদ্দিন ও সাহাবুদ্দিন জমি ও সরকারি খাল দখল সহজ লভ্য করতে মোগড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার মজিবুর রহমানের নেতৃত্বে একটি সংঘবদ্ধ চক্র গড়ে তোলে নিরীহ লোকের জমি দখল করে যাচ্ছে।





এ ব্যাপারে মোগড়াপাড়া ইউপির মেম্বার মজিবুর রহমান মুঠোফোনে প্রতিবেদককে বলেন,আমার ইউপি কার্যালয়ে আসেন।আমার বিরুদ্ধে যদি কারো জমি দখলের প্রমান পান যে শাস্তি দিবেন মাথা পেতে নিব।আমি এ কাজের সাথে জড়িত নই।আমার ২৫ শতাংশ জমিও তারা ভরাট করেছে,টাকা পরে দিবে।





ড্রেজার মালিক মোতালিব মুঠোফোনে জানান,আমাকে কন্ট্রাকে ভাড়া নিয়েছে।আমাকে যেখানে বালু ফেলতে বলে আমি সেখানে বালু ফেলি।
ভূমিদস্যু সাহাবুদ্দিনের মুঠোফোনে একাধিক বার কল করা হলে মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।





সহকারী ভূমি কর্মকর্তা জালালউদ্দিন আহম্মদ বলেন,আমি ষ্টাফ সহ ৫/৬ জন ঘটনাস্থলে গিয়েছি। সকল অবৈধ কার্যকলাপ বন্ধের জন্য বলি ও সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দেই।কিন্তু তারা রাতের আধারে অবৈধ ভাবে ড্রেজারের মাধ্যমে বালু ভরাটের কাজ চালিয়ে যায়।এমনকি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশেও বালু অপসারণ করে নাই।আমি এসিল্যান্ড স্যারকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ করে ইতি মধ্যে একটি পত্র দিয়েছি।





এ ব্যাপারে সহকারী কমিশনার ভূমি মোঃ আল মামুন মুঠোফোনে জানান,এখন আর বালু ভরাট করেনা।তাদের ৭ দিন সময় দিয়েছিলাম সময় হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীর একটি অনুষ্ঠান নিয়ে ব্যস্ত আছি।সেটা শেষ করে উক্ত বিষয়ে কঠোর আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে এবং ভরাটকৃত সরকারি খাল পুনরুদ্ধার করে পানির প্রবাহ নিশ্চিত করা হবে,অবৈধভাবে ভরাটকৃত সকল বালু জব্দ করে সরকারি নিয়ন্ত্রণে আনা হবে।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭