আমি একজন ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই,পানছড়িতে জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থী অর্পিতা শীল - আজকের সংবাদ

সদ্য পাওয়া

Home Top Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭

Post Top Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭

বুধবার, ৩ জুন, ২০২০

আমি একজন ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই,পানছড়িতে জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থী অর্পিতা শীল


আমি একজন ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই,পানছড়িতে জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থী অর্পিতা শীল





মিঠুন সাহা,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিঃ খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলায় পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষায় এবার জিপিএ ৫ পাওয়া ৫ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে
একজন হচ্ছেন অর্পিতা শীল।





জিপিএ ৫ কে নিজের আয়ত্তে রাখার একজন দক্ষ জাদুকর বলা যায় এই শিক্ষার্থীকে। প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে উচ্চ বিদ্যালয়ের গণ্ডী শেষ করলো মেধার একেকটা চমক দেখিয়ে।তার সেই চমকে গর্বিত সবাই।





পানছড়ি মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ২০১৪ সালে জিপিএ ৫, ২০১৭ সাল পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫, অবশেষে একই বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে জিপিএ ৫ পায় এই শিক্ষার্থী অর্পিতা শীল।





প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে উচ্চ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক ও শিক্ষিকাদের কাছে আশা ও ভরশার একজন অনন্যা ছাত্রী ছিল অর্পিতা। নামের সাথে বাস্তবিকতার এক প্রখর মেলবন্ধন রয়েছে এই শিক্ষার্থীর মধ্যে।গানে,নাচে ও আবৃত্তিতে তার সুনিপুণ গুণ রয়েছে।





বাবা উজ্জ্বল শীল পেশায় সেলুনের কাজ করেন,মা শিপ্রা শীল একজন গৃহিণী। দুইবোনের মধ্যে সবার বড় অর্পিতা।





মেয়েকে উচ্চ শিক্ষিত করে দেশের একজন সেবক করার স্বপ্ন দেখেন বাবা উজ্জ্বল শীল।





অর্পিতা শীলের সাথে আলাপ কালে জানা যাই;আসলে আমার মা ও বাবা আমার জন্য অনেক পরিশ্রম করেছেন।আমার সব সময় টেককেয়ার করেছেন।আমার আজকের এই সাফল্যের পেছনে আমার মা বাবা সহ সকল শিক্ষক শিক্ষিকাদের অবদান রয়েছে।বিশেষ করে নিখিল স্যার,কাশেম স্যার,বিশ্বময় স্যার,লিটন স্যার আমার অনেক জটিল বিষয় বুঝতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। আর তাছাড়া সকল শিক্ষকরা আমাকে সব সময় মানসিক ভাবে সাহস যোগাতেন,
সন্তানের স্নেহে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে উৎসাহিত ও অনুপ্রানিত করতেন।আমি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে চাই এবং বড় হয়ে একজন আইসিটি ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই।আইসিটি ইঞ্জিনিয়ার হয়ে দেশের সেবা করতে চাই।সবাই আমার জন্য আশীর্বাদ করবেন।





বাবা উজ্জ্বল শীল বলেন:অর্পিতা ভালো ফলাফল করে একজন বড় মনের মানুষ হবে এমন স্বপ্ন ছিল আমার।এই সাফল্যের পথে ও আজ একধাপ এগিয়ে গেল।বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষকরা ওর জন্য অনেক পরিশ্রম করেছেন।আমি মেয়ের সব শিক্ষকদের নিকট কৃতজ্ঞতা জানাই।





বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব অলি আহম্মেদ বলেনঃঅর্পিতা বরাবরই একজন ভালো শিক্ষার্থী।আমাদের বিশ্বাস ছিল সে জিপিএ ৫ পাবেই।আগামীতেও যেন সে তার এই সাফল্যের ধারা অব্যাহত রাখে এই প্রত্যাশা করি।সর্বপরি তার জন্য শুভ কামনা রইলো।





এছাড়া এম এ আজিজ কোচিং সেন্টারের শিক্ষক হেলাল উদ্দিন ও শহিদুল ইসলাম শিমু তার এই সাফল্যে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৯২৬৮৭০৭২৭